গত ২৫ এপ্রিল বাংলাদেশের ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) নেতারা এফবিসিসিআইয়ের মালিকানায় ব্যাংক, বিমা, বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে পত্রপত্রিকায় খবর প্রকাশিত হওয়ার পর সেটা নিয়ে রাজনীতির অঙ্গনে ও বিশেষজ্ঞ মহলে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

বিদায়ী সভাপতির মেয়াদ কিছুদিনের মধ্যেই সম্পন্ন হতে চলেছে, অতএব তাঁর আমলে নেওয়া সিদ্ধান্তে ব্যাংক, বিমা, বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ পাইয়ে দিলে ভবিষ্যতে ‘কীর্তি’ হিসেবে ওসব অবদান উল্লেখযোগ্য হবে! কিন্তু এফবিসিসিআইয়ের মালিকানায় ব্যাংক প্রতিষ্ঠার ব্যাপারটা যেহেতু খোদ এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতিসহ ব্যবসায়ী-শিল্পপতি মহলের অনেকের কাছেই অভূতপূর্ব ও অপ্রয়োজনীয় আবদার মনে হচ্ছে, তাই এই দাবিটা নিয়ে কিছু আলোচনা-বিশ্লেষণ প্রয়োজন। গত ২৬ এপ্রিল ২০২১ তারিখে প্রথম আলোয় এ সম্পর্কে আমার মন্তব্য প্রকাশিত হয়েছে, যেখানে আমি এই ব্যাংক প্রতিষ্ঠার লাইসেন্স অচিরেই এফবিসিসিআই কর্তৃপক্ষকে প্রদান করা হবে বলে ভবিষ্যদ্বাণী করেছি। আজ আমার এই অবস্থান ব্যাখ্যা করছি।

এটাকে আমি ‘অদ্ভুত আবদার’ অভিহিত করছি এ জন্য যে বাংলাদেশের ব্যাংকমালিকদের সবাই তো এফবিসিসিআইয়ের সদস্যদের অন্তর্ভুক্ত কোনো না কোনো ব্যবসায়ী-শিল্পপতি গোষ্ঠীর বা সমিতির নেতা-নেত্রী কিংবা প্রভাবশালী সদস্য। তাঁদের মধ্যে অনেক পরিবারের হাতে এখন ব্যাংকগুলোর মালিকানা কেন্দ্রীভূত হয়েছে। এমনও দেখা যাচ্ছে, প্রাথমিকভাবে যাঁরা ব্যাংকগুলোর উদ্যোক্তা-শেয়ারহোল্ডার ছিলেন, তাঁরা তাঁদের শেয়ার উচ্চমূল্যে বিক্রি করে এক ব্যাংক থেকে সটকে পড়ে অন্য ব্যাংকে ঘাঁটি গেড়েছেন। কিংবা বিক্রয়লব্ধ অর্থ বিদেশে পাচার করে সপরিবার বিদেশে চলে গেছেন। রাজনীতিবিদ ও তাঁদের আত্মীয়স্বজনের মধ্যে এমন কারবারের মাধ্যমে মুফতে কোটি কোটি টাকা বানিয়ে বিদেশে পাড়ি দেওয়াটা এ দেশের ‘ক্রোনি-ক্যাপিটালিস্ট পলিটিক্যাল কালচার’ হিসেবে সুপরিচিত। এ দেশের প্রভাবশালী ব্যবসায়ী-শিল্পপতি গ্রুপগুলোর সিংহভাগ যেহেতু পরিবারকেন্দ্রিক মালিকানা ও পরিচালনার অধীনে ন্যস্ত রয়েছে, তাই ক্রমেই অধিকাংশ ব্যাংকের মূল মালিকানা ও পরিচালনা পর্ষদগুলো একক পারিবারিক নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে। (ন্যাশনাল ব্যাংকের মালিকানা ও পরিচালনা নিয়ে ভাইবোনদের সাম্প্রতিক কোন্দল পরিবারের সদস্যদের মধ্যেই ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে কাড়াকাড়ির অনেক ঘটনা সামনে নিয়ে এসেছে)।



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews