উজান থেকে নেমে আসা তিস্তায় ঢল এবং অতি বর্ষণে রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলায় বন্যা পরিস্থিতি বিরাজ করছে। বন্যায় কারণে এই বিভাগের ৪ জেলায় ১৮ হাজার হেক্টর জমির ফসল পানির নিচে রয়েছে। যেসব ফসল নিমজ্জিত হয়েছে সেগুলো হচ্ছে আমন বীজতলা, আউস, শাক-সবজি, চীনাবাদাম, পাট, কাউন, পাট, আদা, হলুদ তিল ইত্যাদি। 

ক্ষেতের ফসল পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় এসব এলাকার কৃষকরা চোখে মুখে অন্ধকার দেখছে। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন করে বন্যার পানি চলে যাওয়ার পর কৃষকদের আগাম অন্য ফসল রোপনের পরামর্শ দিয়েছে। এদিকে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় তিস্তার ডালিয়া পয়েন্টে পানি বিপদসীমার নিচে ৫১ দশমিক ৯৫ সেন্টিমিটারে প্রবাহিত হচ্ছিল। এই পয়েন্টে বিপদসীমা ধরা হয় ৫২ দশমিক ৬০ সেন্টিমিটার।  

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, বন্যায় রংপুর বিভাগের ৫ জেলায় রোপা ১৮ হাজার ৩৯৫ হেক্টর আমনের বীজতলাসহ অন্যান্য ফসল নিমজ্জিত হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কুড়িগ্রামে ১৫ হাজার ৮৫১ হেক্টর, গাইবান্ধায় ২ হাজার ১৫১ হেক্টর, লালমনিরহাটে ৩৮০ হেক্টর ও রংপুরে ১০ হেক্টর রয়েছে। বন্যার পানি দীর্ঘস্থায়ী ও জলাবদ্ধতা হলে এসব ফসল কৃষকরা ঘরে তুলতে পারবে না বলে শঙ্কা করা হচ্ছে। 

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার গজঘন্টা ইউনেয়নের আমন চাষি মিজানুর, হাদিসহ বেশকজন জানান, বন্যায় তাদের আমনের বীজতলা একেবারে নষ্ট হয়ে গেছে। এবার তারা আমনের আবাদ করতে পারবেন কিনা এ নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। একই অবস্থা কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধাসহ অন্যান্য জেলার প্রায় আমন চাষির।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ওবায়দুর রহমান মন্ডল জানান, রংপুরে আমনের বঝিতলা কিছু নিমজ্জিত হয়েছে। বিষয়টি আমরা কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। 

বিডি প্রতিদিন/এএম



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews