সাইটগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগে পর্দায় ভেসে ওঠে “চরম পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকুন” সতর্কবার্তা।

সাইবার আক্রমণের মূল হোতার পরিচয় এখনো জানা যায়নি। তবে দেশটির এক মুখপাত্র বিবিসি’র কাছে দাবি করেছেন, ইউক্রেইনের সরকারী অবকাঠামোর উপর আগের সাইবার আক্রমণের পেছনে রাশিয়ার হাত ছিল। 

রাশিয়া এখনো এই প্রসঙ্গে কোনো মন্তব্য করেনি বলে জানিয়েছে বিবিসি। তবে, সাম্প্রতিক সময়ে ক্ষমতাধর প্রতিবেশি দেশটির কাছ থেকে নানাভাবে চাপের মুখে পড়েছে ইউক্রেইন। দেশটির সীমান্তে এক লাখ সৈনিক মোতায়েন করেছে রাশিয়া।

ইউক্রেইনের গোয়েন্দা সংস্থা এসবিইউ-এর দেয়া তথ্য অনুযায়ী, শেষ নয় মাসে এক হাজার দুইশ’ সাইবার আক্রমণ প্রতিহত করেছে তারা। শুক্রবারের সাইবার হামলায় সরকারী ওয়েবসাইট হ্যাকিংয়ের পর সতর্কবার্তাটিও দেওয়া হয়েছে ইউক্রেনিয়ান, পোলিশ ও রাশিয়ান– এই তিন ভাষায়।

“ইউক্রেইন বাসী! আপনার সকল ব্যক্তিগত ডেটা পাবলিক ইন্টারনেটে আপলোড করা হয়েছে। এটা আপনার অতীত, আপনার বর্তমান ও আপনার ভবিষ্যতের জন্য।”-- বলা হয়েছে ওই বার্তায়।

তবে, প্রাথমিক তদন্ত শেষে এসবিইউ-এর দাবি, কারো ব্যক্তিগত ডেটা বেহাত হয়নি, পরিবর্তন আসেনি কোনো কনটেন্টে। 

বিবিসি জানিয়েছে, যে ওয়েবসাইটগুলো আক্রমণের শিকার হয়েছে তার মধ্যে ইউক্রেইনের ‘ডিয়া’ ওয়েবসাইটও আছে। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সরকারি সেবা দিয়ে থাকে ওই ওয়েবসাইটটি, এ ছাড়াও নাগরিকদের ব্যক্তিগত ডেটা এবং কোভিড-১৯ মহামারীর টিকা সংশ্লিষ্ট তথ্য জমা থাকে ওই ওয়েবসাইটে।

“এই ধরনের সাইবার হামলা” মোকাবেলায় ইউক্রেইনকে সহযোগিতা করতে সব ধরনের রশদ মাঠে নামানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতিমালাবিষয়ক প্রধান জোসেপ বোরেল।

সাইবার আক্রমণের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে রাখতে কয়েকটি ওয়েবসাইট বন্ধ রাখার কথা জানিয়েছে ইউক্রেইন সরকার। তবে এসবিইউ বলছে, ইতোমধ্যেই অনোইনে ফিরিয়ে আনা হয়েছে বেশিরভাগ ওয়েবসাইট।



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews