আজ ১৫ সেপ্টেম্বর ইসরায়েলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই) ও বাহরাইনের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের মধ্য দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের ভূরাজনীতিতে বেশ পরিবর্তন আসতে যাচ্ছে। দীর্ঘ সময় ধরে এর ক্ষেত্র প্রস্তুত হচ্ছিল। যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসনের মধ্যপ্রাচ্যনীতি বহু বছর ধরে ইসরায়েলকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হচ্ছে। ট্রাম্প প্রশাসনের ইসরায়েলের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি পূর্বসূরিদের তুলনায় ভিন্ন। ট্রাম্প তাঁর ইহুদিধর্মাবলম্বী জামাই জারেড কুশনারকে মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক বিশেষ দূত এবং কার্যত উপদেষ্টা নিয়োগ করার পর থেকে এ প্রচেষ্টা চলমান। ইসরায়েলের দাবি অনুযায়ী, ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর ট্রাম্প প্রশাসন জেরুজালেমকে ইসরায়েলের একক রাজধানীর স্বীকৃতি দিয়ে জাতিসংঘের ১৯৪৮ সালের ১৪১ নম্বর প্রস্তাবকে যেমন উপেক্ষা করেছে, তেমনি ফিলিস্তিনিদের কড়া বার্তা দিয়েছে। ফিলিস্তিনিরা তাদের রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ৭০ বছরের সংগ্রামে পূর্ব জেরুজালেমকে রাজধানী করার স্বপ্ন দেখে এসেছে।

ইউএই হবে তৃতীয়, আর বাহরাইন চতুর্থ আরব দেশ, যারা ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করতে যাচ্ছে। প্রকাশ্যে বলা হয়েছে, ইউএই ও বাহরাইনের মতো প্রভাবশালী ও সম্পদশালী দেশ কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে ইসরায়েলকে ফিলিস্তিনি তথা পশ্চিম তীরে ইহুদি বসতি স্থাপন ও ভূমি দখল থেকে বিরত রাখবে। অন্যদিকে এই কূটনৈতিক সম্পর্ক স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় সহায়ক হবে। দুই রাষ্ট্রের ফর্মুলা নিয়ে জেরাড কুশনার কাজ করছেন বলে ট্রাম্পের মুখ থেকে শোনা যায়।



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews