প্রকল্প সম্পন্ন করতে নাসা নোকিয়াকে এক কোটি ৪১ লাখ ডলারের তহবিল দেবে। প্রযুক্তিবিষয়ক ব্লগ এনগ্যাজেট উল্লেখ করেছে, ২০২৪ সাল নাগাদ ফের চাঁদে যেতে চাইছে নাসা। ওই সময় যাতে নভোচারীরা নিজেদের মধ্যে নির্ভরযোগ্য পন্থায় কথা বলতে পারে, তা নিশ্চিত করতে চাইছে সংস্থাটি।

নাসার সহযোগী প্রশাসক জেমস রয়টার জানিয়েছেন, ওই সেলুলার সেবা চন্দ্র আবাসস্থল ও এর পৃষ্ঠে ঘুরে বেড়ানো নভোচারীদের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারবে। এর মাধ্যমে এজেন্সি ও মহাকাশযানের মধ্যে যোগাযোগের একটি পথও উন্মোচিত হতে পারে।

“কীভাবে স্থল প্রযুক্তিকে নির্ভরযোগ্য, উচ্চ-মূল্যের যোগাযোগের জন্য চাঁদের পৃষ্ঠে বদলে দেওয়া যায় তা নাসা তহবিল কাজে লাগিয়ে খতিয়ে দেখতে পারবে নোকিয়া।” – বলেছেন রয়টার।

নোকিয়ার চুক্তিটি মূলত নাসার নতুন ‘আর্তেমিস’ তহবিলের অংশ। ওই তহবিলে মোট ৩৭ কোটি ডলার রয়েছে। এর অধিকাংশই ‘স্পেসএক্স’ ও ‘ইউনাইটেড লঞ্চ অ্যালায়েন্স” এর মতো প্রতিষ্ঠানকে দিয়েছে নাসা।

চাঁদের পৃষ্ঠে এলটিই স্থাপনে কাজ করার আগ্রহ অবশ্য আগেই প্রকাশ করেছে নোকিয়া। ২০১৮ সালে জার্মান মহাকাশ সংস্থা পিটিসায়েন্টিস্টস এবং যুক্তরাজ্যের মোবাইল সেবাদাতা ভোডাফোনের সঙ্গে অংশীদারিত্বে কাজ করেছে প্রতিষ্ঠানটি, সে সময় তাদের লক্ষ্য ছিলো অ্যাপোলো ১৭ অবতরণ সাইটে ফেরত যাওয়া।

প্রকল্পটির অংশ হিসেবে, নোকিয়া ও ভোডাফোন চন্দ্রভিত্তিক এলটিই নেটওয়ার্ক তৈরির পরিকল্পনা করেছিল। ওই নেটওয়া্র্কের মাধ্যমে পৃথিবীর বুকে ‘হাই ডেফিনেশন ভিডিও’ পাঠানোর পরিকল্পনাও ছিলো তাদের। কিন্তু প্রকল্পটি শেষ পর্যন্ত আর বাস্তবায়নের পর্যায়ে যায়নি।



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews