রুস্তম আলীর দাবি, ঘটনার পরদিন জান্নাতুলের লাশ দাফনের জন্য চাঁদপুরে তাঁদের বাড়ির কাছাকাছি পৌঁছানোর পরই সবুজবাগ থানা-পুলিশ তাঁকে ঢাকায় ফিরতে বাধ্য করে। এরপর পুলিশের করা মামলায় তাঁর স্বাক্ষর নেওয়া হয়। মামলার তথ্যও পুলিশ তাঁকে পড়েও শোনাননি। পুলিশ তাঁকে কিছু বলার সুযোগও দেয়নি। এরপর জান্নাতুলের দাফন শেষে ঢাকায় ফিরে তিনি জানতে পারেন, পুলিশ তাদের মনগড়া মামলা সাজিয়েছে। এতে পুলিশ উল্লেখ করেছে, মনির হোসেন চুরি করতে গিয়ে জান্নাতুলকে খুন করেছেন। তবে পুলিশ চুরির কথা বললেও বাসা থেকে কিছু খোয়া যায়নি। মোস্তাফিজুর ও তাঁর ভাবিকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত কারণ বেরিয়ে আসবে বলে মনে করেন রুস্তম আলী।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জান্নাতুলের স্বামী মোস্তাফিজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, তিনি ও তাঁর ভাবি কোনোভাবেই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত নন। বিয়ের আগে তাঁর সঙ্গে জান্নাতুলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তিনি আরও বলেন, মনির প্রথমে হত্যাকাণ্ডে তাঁর ভাবির জড়িত থাকার স্বীকার করলেও পরক্ষণেই পুলিশ কর্মকর্তাদের সামনেই তা অস্বীকার করেন।



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews