পেঙ্গুইন বইটি নিয়ে ছোট্ট একটি ভূমিকাও তাদের সাইটে প্রকাশ করেছে। ভূমিকাটি এ রকম:
বাড়ি কোথায়? অমর্ত্য সেনের বাড়ি তো একটি নয়, একাধিক—ঢাকা শহরে তাঁর বেড়ে ওঠা, শান্তিনিকেতনে পিতা–মাতার সঙ্গে পিতামহ-পিতামহীর ছায়ায় বড় হয়ে ওঠা, অর্থনীতির প্রথম পাঠ কলকাতা শহরে, যে শহরে তিনি ছাত্ররাজনীতিও করেছেন, এরপর ১৯ বছর বয়সে ট্রিনিটি কলেজে যাওয়া—এই সব স্থানই তাঁর বাড়ি হয়ে উঠেছে।
এই প্রত্যেক স্থানের অভিজ্ঞতা অমর্ত্য সেন চমৎকারভাবে বিবৃত করেছেন। পড়লে মনে হবে, সেই অভিজ্ঞতার যেন পুনর্জন্ম হয়েছে।

তাঁর চিন্তার মূলে আছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রতিষ্ঠিত শান্তিনিকেতনের বুদ্ধিবৃত্তির অর্গল খুলে দেওয়া পরিবেশ এবং কলেজ স্ট্রিটের কফি হাউসের প্ররোচনামূলক আড্ডা। বলা বাহুল্য, তাঁর নামটিও রবীন্দ্রনাথের দেওয়া। কেমব্রিজে স্নাতকের ছাত্র থাকার সময় তিনি সেখানকার শীর্ষস্থানীয় চিন্তকদের সঙ্গে মেলামেশা করেছেন। এই আত্মজীবনী গ্রন্থে যেমন নানামুখী চিন্তার সমাবেশ ঘটেছে, তেমনি ব্যক্তি ও স্থানের সমাবেশও ঘটেছে। কার্ল মার্ক্স থেকে শুরু করে কেইনস, অ্যারো—কে নেই এখানে।



Contact
reader@banginews.com

Bangi News app আপনাকে দিবে এক অভাবনীয় অভিজ্ঞতা যা আপনি কাগজের সংবাদপত্রে পাবেন না। আপনি শুধু খবর পড়বেন তাই নয়, আপনি পঞ্চ ইন্দ্রিয় দিয়ে উপভোগও করবেন। বিশ্বাস না হলে আজই ডাউনলোড করুন। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

Follow @banginews